Home / অর্থনীতি / বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে বিস্তারিত

বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে বিস্তারিত

বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে বিস্তারিত।বেশ কয়েক বছরের কঠোর প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের বৈশ্বিক ভাবমূর্তির আমূল পরিবর্তন ঘটেছে। একসময় পশ্চিমা বিশ্বের মনশ্চক্ষুতে দারিদ্র্য ও ক্ষুধার চিত্রই ভেসে উঠত। কিন্তু এখন এর দৃঢ় মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি একনিষ্ট উদ্যোগের প্রতীক হিসেবে পুরোপুরিই স্পষ্ট। হেনরি কিসিঞ্জার কর্তৃক আখ্যায়িত ‘তলাবিহীন ঝুড়ির’ সেই দেশ সম্পর্কেই এখন প্রাক্কলন করা হচ্ছে ভবিষ্যতের ‘এশীয় বাঘ’ রূপে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে দাতাদের অবসাদ ও সেকেলে কর প্রশাসনের সুবাদে রাজস্ব ঘাটতির দরুন প্রচুর চাপ সত্ত্বেও বেশ কয়েক বছর যাবত্ গড়ে ৭ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরে রেখে মাথাপিছু আয়ের দ্রুত পরিবর্ধনই আজ অর্থনৈতিক বিশ্বের কাছে বড় বিস্ময়। অর্থনীতির চাকা প্রায় আগের মতোই সচল রেখে করোনা ভাইরাসকে মোকাবিলা করার নিগূঢ় রহস্য জানতে প্রতিবেশী দেশগুলোও উদগ্রীব।

 বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে বিস্তারিত

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সব দেশের অর্থনীতিই আক্রান্ত হয়েছে, যার ফলে কমেছে মাথাপিছু আয়। কিন্তু এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম বাংলাদেশ। আসলে এখানে মূল কৃতিত্বটা অন্য জায়গায় নিহিত—বন্যা, নদীভাঙন, ঘূর্ণিঝড় ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগের অভিজ্ঞতা কোভিড-১৯ মোকাবিলায় সাহায্য করেছে। ক্ষুদ্র দেশ, অখচ লোকসংখ্যা ১৬ কোটি ৮০ লাখ। এটি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে না পারার নিয়ামক হিসেবে কাজ করেছে যথাসময়ের অর্থনৈতিক প্রণোদনা প্যাকেজ, সুদূরদর্শী নগদ উদ্দীপনা, রপ্তানি আয় ও দৃঢ় রেমিট্যান্স অন্তঃপ্রবাহ। বিশাল জনসংখ্যা সত্ত্বেও বাংলাদেশ মডেল আজ বিশ্বের কাছে এক ইতিবাচক দৃষ্টান্ত, যেটি তাকে সাহায্য করেছে এশীয় অঞ্চলে সবাইকে ছাপিয়ে যাওয়া নায়ক বানাতে। অতিমারির বিস্তার রোধে লকডাউনের কারণে বিশ্বব্যাপী অর্থনীতি যখন সংকুচিত হচ্ছিল, সে জায়গায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশ ধনাত্মক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। তবে দুঃখের বিষয় হচ্ছে—বাংলাদেশের উন্নয়নের সুফল সবাই সমানভাবে পাচ্ছে না। অবশ্য এক্ষেত্রে আমরা একা নই। একমাত্র আদিম যুগই ব্যতিক্রম, এছাড়া মানুষে মানুষে পার্থক্য সব যুগেই ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। স্তরায়ন, বৈষম্য বা অসমতা, যাই বলি না কেন, সারা বিশ্বেই বিদ্যমান। কিন্তু নতুন তথ্য হচ্ছে, অসমতার মাত্রা সম্পর্কে সবাই যা জানে, প্রকৃত মাত্রা তার চেয়ে অনেক বেশি। এককথায় যা ভয়াবহ। নতুন এক বিশ্লেষণে এমনই তথ্য উঠে এসেছে। অসমতার সরকারি হিসাবে শুধু সেসব অর্থই বিবেচনায় আনা হয়, যার প্রতি কর আদায়কারীদের নজর পড়ে। সাম্প্রতিক এক গবেষণার পর এসব তথ্য জানিয়েছেন পৃথিবীর তিন বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ অ্যালেট স্টাডসেটার, নিলস জোহানসেন ও গ্যাব্রিয়েল জুকম্যান। তাদের বিশাল কর্মযজ্ঞে পানামা ও সুইজারল্যান্ডের কাছে থাকা অত্যন্ত গোপনীয় দলিলের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। যেগুলো জনার পর বিস্মিত না হয়ে উপায় নেই আর এর মাধ্যমে বৈশ্বিকভাবে কর ফাঁকির বিস্ময়কর সব তথ্য উঠে এসেছে, যার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন সারা বিশ্বের বাঘা বাঘা সম্পদশালীরা

বাংলাদেশের নারী এবং অর্থনীতি

২০১৪ সালের হিসাবে বিশ্বব্যাংকের তথ্য অনুসারে শ্রমশক্তিতে নারীর অংশগ্রহণ ৫৮%, এবং পুরুষের অংশগ্রহণ ৮২%। ২০০৭ সালে বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে যে ক্ষেত্রগুলিতে মহিলাদের কর্মশক্তির অংশগ্রহণ সর্বাধিক বৃদ্ধি পেয়েছে তা হলো কৃষিক্ষেত্র, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য ও সামাজিক কাজের ক্ষেত্রে শ্রমশক্তির তিন চতুর্থাংশেরও বেশি মহিলা কৃষিতে কাজ করে, অন্যদিকে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা জানিয়েছে যে ২০০০ থেকে ২০০৫ সালের মধ্যে পেশাদার এবং প্রশাসনিক ক্ষেত্রে মহিলাদের কর্মশক্তির অংশগ্রহণ কেবল বৃদ্ধি পেয়েছে, উচ্চতর শিক্ষার প্রয়োজন এমন খাতগুলিতে মহিলাদের বর্ধিত অংশগ্রহণ প্রদর্শন করে। বিশ্বব্যাংক, জাতিসংঘ এবং আইএলওর কর্মসংস্থান ও শ্রমশক্তির অংশগ্রহণের ডেটাগুলি পরিবর্তিত হয় এবং প্রায়শই বেতনের শ্রম এবং অনানুষ্ঠানিক খাতের কাজের কারণে মহিলাদের কাজ সম্পর্কিত প্রতিবেদনের অধীনে রয়েছে ।যদিও এই ক্ষেত্রগুলিতে বেশিরভাগ অর্থ প্রদান করা হয়, তবে মজুরির পার্থক্য এবং কাজের সুবিধাসহ মহিলারা পুরুষদের তুলনায় খুব আলাদা কাজের পরিস্থিতি অনুভব করেন। একই মজুরির জন্য পুরুষদের বেতনের তুলনায় মহিলাদের মজুরি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কম, মহিলাদের পুরুষদের তুলনায় ০.৫ শতাংশ কম বেতন দেওয়া হচ্ছে। কর্ম শক্তিতে নারীর অবস্থার উন্নতির জন্য যে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে তার একটি উদাহরণ হলো বেসরকারী সংস্থা। এই এনজিওগুলি বাহ্যিক তহবিলের পরিবর্তে মহিলাদের পরিবার ও সমাজের মধ্যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি করার পরিবর্তে মহিলাদের নিজস্ব স্ব-সঞ্চয়ীকরণের উপর নির্ভর করতে উত্সাহিত করে। তবে, কিছু এনজিও যারা স্বতন্ত্র পরিবারগুলির মধ্যে মাইক্রোকোনমিক ইস্যুগুলিকে সম্বোধন করে তারা নারীদের সম্পূর্ণ স্বায়ত্তশাসন এবং অগ্রগতি রোধ করে এমন বিস্তৃত সামষ্টিক অর্থনৈতিক সমস্যা মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়।

ঐতিহাসিক পরিসংখ্যান

একাত্তরের স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক খাতের অবদানের উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছে। যদিও ১৯৯০ এর দশকে অর্থনীতি ব্যাপকভাবে উন্নতি লাভ করেছে, দক্ষিণ এশিয়ায় বিদেশি বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখনও ভুগছে। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন উদ্যোগ এর অদক্ষতার মতো বৃদ্ধির ক্ষেত্রে বড় বাধা থাকা সত্ত্বেও দ্রুত বর্ধমান শ্রমশক্তি যা কৃষিক্ষেত্র, অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ, এবং ধীর প্রয়োগ অর্থনৈতিক সংস্কার, বাংলাদেশ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য আবহাওয়ার উন্নতি এবং মূলধন বাজার এর উদারকরণের কিছুটা অগ্রগতি করেছে, উদাহরণস্বরূপ, এটি তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য বিদেশী সংস্থাগুলির সাথে আলোচনা করেছে, রান্নার গ্যাসের দেশব্যাপী বিতরণকে আরও ভাল করেছে এবং প্রাকৃতিক গ্যাস পাইপলাইন এবং বিদ্যুৎ কেন্দ্র এর নির্মাণ শুরু করেছে। আমলাতন্ত্র, পাবলিক সেক্টর ইউনিয়ন এবং অন্যান্য স্বার্থান্বেষী স্বার্থ গোষ্ঠীগুলির বিরোধিতার কারণে অন্যান্য অর্থনৈতিক সংস্কারের অগ্রগতি থমকে আছে।

১৯৯৮ সালের বিশেষত মারাত্মক বন্যার ফলে আন্তর্জাতিক সহায়তা প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছিল। এখনও অবধি বিশ্বব্যাপী আর্থিক সঙ্কট অর্থনীতিতে বড় ধরনের প্রভাব ফেলেনি, গত কয়েক দশকে বৈদেশিক সহায়তা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেয়েছে তবে অর্থনীতিবিদরা এটিকে একটি হিসাবে দেখছেন স্বনির্ভরতার জন্য শুভ লক্ষণ। রফতানি ও রেমিট্যান্স প্রবাহে নাটকীয় প্রবৃদ্ধি হয়েছে যা অর্থনীতির হার স্থিতিশীলভাবে প্রসারিত করতে সহায়তা করেছে ।

১৯৭৫ সাল থেকে বাংলাদেশ জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশগুলির (এলডিসি) তালিকায় রয়েছে। বাংলাদেশ মার্চ, ২০১৮ সালে একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করেছে। বাংলাদেশের মোট জাতীয় আয় (জিএনআই) মাথা পিছু ২,০১০ ডলার।

বাংলাদেশের নামের পাশে এখন প্রায়ই ‘উন্নয়নের জাদু’ শব্দ দুটি জুড়ে দেওয়া হয়। সংগ্রাম ও সহনশীলতার কারণে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্প আজ কেবলই ঊর্ধ্বমুখী। এর পাশাপাশি তেজোদ্দীপ্ত ওষুধ শিল্প ও অন্যান্য রকমারি ম্যানুফ্যাকচারিং খাতগুলো রপ্তানিমুখী প্রবৃদ্ধির মডেলকে আলিঙ্গন করতে সাহায্য করেছে। সত্যি বলতে গেলে, এ দেশ দক্ষিণ এশিয়ার জন্য অনন্য দৃষ্টান্ত। উন্নয়নের যাত্রায় বাংলাদেশ বাংলাদেশ দীর্ঘ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বলেই অনেক কিছুই আজ সম্ভব হচ্ছে। এক দশকের ৭ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি চূড়ান্ত দারিদ্র্যের হারকে নামিয়ে আনতে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। এরই সঙ্গে বেড়েছে লোকজনের গড় আয়ু ও বয়স্ক শিক্ষার হার; আর কমেছে মাতৃ ও শিশু মৃত্যুর হার।

ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর পোর্টালে ভিজিট করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন এবং ফেসবুক পেজে লাইক/ফলো দিয়ে রাখুন।

About E.H Emon

আস-সালামু আলাইকুম। আমার নাম মোঃ ইমদাদুল হক, এবং আমার ডাকনাম ইমন। আমি ঢাকার সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্টের একজন শিক্ষার্থী। আমি ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিচালক। সব সময় আমার ইঞ্জিনিয়ার শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ইনফর্মেশন দিতে অত্যন্ত ভালো লাগে। সেই ভালোলাগা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *