Home / উচ্চশিক্ষা / যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-(JUST)

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-(JUST)

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-(JUST) হচ্ছে বাংলাদেশের যশোর শহরের পাশে অবস্থিত প্রথম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। ২০০৭ সালের ২৫ জানুয়ারি এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০০৮-২০০৯ শিক্ষাবর্ষে এর শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। এটি খুলনা বিভাগের চতুর্থ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় । ২৫ জানুয়ারি, ২০০৭ খ্রি. তারিখ হতে বিশ্ববিদ্যালয়টির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু। এটি বাংলাদেশের প্রযুক্তিগত ও আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়।

 

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-(JUST)

(JUST) গবেষণায় উৎকর্ষের নতুন উচ্চতায় পৌঁছানোর এবং নতুন ধারণা ও উদ্ভাবনের প্রচারে এবং আলোকিত ও দক্ষ তৈরি করে দেশ ও বিশ্ব সম্প্রদায়ের সেবায় এক অনন্য মাইলফলক অর্জনের অবিচল যাত্রা শুরু করেছে। পেশাদাররা যারা 21 শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারে ‘নিয়োগদাতা হওয়া, কর্মচারী নয়’ এই নীতিকে লালন করে।

ডিন: অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গালিব
ধরনঃ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিতঃ ২৫ জানুয়ারি ২০০৭
উপাচার্য :

আচার্য:

অধ্যাপক ড.মোঃ আনোয়ার হোসেন

রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ

শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গঃ ২৭২
স্নাতক: ১ম ব্যাচ, ২০০৮
শিক্ষার্থী: প্রায় ৪১০৫
অবস্থানঃ
যশোর, বাংলাদেশ
শিক্ষাঙ্গনঃ শহুরে
অধিভুক্তি: বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
সংক্ষিপ্ত নাম: যবিপ্রবি / (JUST)
ওয়েবসাইটঃ www.just.edu.bd

আরো দেখুন

ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর ( DUET)

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট)

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ইতিহাস

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (Jashore University of Science and Technology), সংক্ষেপে যবিপ্রবি বা JUST, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বৃহত্তর যশোর জেলার প্রথম ও একমাত্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। উচ্চ শিক্ষার মাধ্যমে আধুনিক জ্ঞান চর্চা ও গবেষণার সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে ২০০৭ সালের ২৫ জানুয়ারি, যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের সাজিয়ালী মৌজায় ৩৫ একর জায়গা জুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। বর্তমানে এ ক্যাম্পাসের আয়তন একশ একরে বর্ধিত করার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল প্রশাসনিক কার্যক্রম যশোর শহরের ধর্মতলাস্থ ‘বৃষ্টি মহল’ নামের একটি ভাড়া বাড়িতে শুরু হয়। এ বাড়িতেই ২০০৯ সালে ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষে ‘কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল, ‘পরিবেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, ‘অণুজীববিজ্ঞান’এবং ‘ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স’বিভাগে মোট ২০০ জন শিক্ষার্থীর ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন হয়।

ঐ বছরই মূল ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ সালের ২৭ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ক্যাম্পাসের শুভ উদ্বোধন করেন।

বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাতটি অনুষদের অধীনে মোট ২৬টি বিভাগে স্নাতক, স্নাতকোত্তর, এমফিল ও পিএইচডি পর্যায়ে ৪ হাজার ১০৫ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রফেসর, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর, অ্যাসিসট্যান্ট প্রফেসর ও লেকচারার মিলিয়ে মোট ২৭২ জন শিক্ষক, বিভিন্ন গ্রেডের ১১৪ জন কর্মকর্তা এবং দৈনিক মজুরিভিত্তিকসহ প্রায় ৩১৭ জন কর্মচারী কর্মরত আছেন।

অবস্থান

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ,স্বাধীনতা সড়ক যেটি চৌগাছা-চুড়ামনকাঠি সড়ক নামেও পরিচিত যশোর সদর, যশোর-এ অবস্থিত । যশোরের কেন্দ্র দড়াটানা থেকে এটি প্রায় ১৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ।

বিস্তারিত দেখুন গুগল ম্যাপে

যোগাযোগের ঠিকানা হল-

  • যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
  • যশোর, বাংলাদেশ
  • ওয়েবসাইট : www.just.edu.bd

আরো দেখুন

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট)

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-(পাবিপ্র

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অনুষদ এবং বিভাগ সমূহ

প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ জীব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ
১.ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (EEE) ১.ফার্মেসী(Pharm) ১.পরিবেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি (EST)
২.ইন্ডাসট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং (IPE) ২.অণুজীব বিজ্ঞান (MB) ২.পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি(NFT)
৩.কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (CSE) ৩.ফিসারিজ এন্ড মেরিন বায়োসাইন্স(FMB) ৩.Agro Product Processing Technology (APPT)
৪.পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং(PME) ৪.জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি(GEBT) ৪.ক্লাইমেট অ্যান্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট (সিডিএম)
৫.কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (ChE)
৬.বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং (BME)
৭.টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং (TE)

 

কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ স্বাস্থ্যবিজ্ঞান অনুষদ বিজ্ঞান অনুষদ ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ
১.ইংরেজি (ENG)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] ১.শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান (PESS) ১.রসায়ন বিজ্ঞান (Chem) ১.একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস(AIS)
২.ফিজিওথেরাপি অ্যান্ড রিহ্যাবিলেটশন (পিটিআর) ২.গণিত (Math) ২.ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং(FB)
৩.নার্সিং অ্যান্ড হেলথ সায়েন্স (এনএইচএস) ৩.পদার্থ বিজ্ঞান(Phy) ৩.ম্যানেজমেন্ট(MGT)
৪.মার্কেটিং (MKT)

 একাডেমিক ক্যাম্পাস সমূহ

যবিপ্রবি ক্যাম্পাসের উত্তরে অবস্থিত একটি নয় তলা ভবন । সব বিভাগের অফিস,পাঠদান কক্ষ ,এবং পরীক্ষাগার এই ভবনে । প্রকৌশল এবং প্রযুক্তি অনুষদের বিভাগসমূহ গ্রাউন্ড ফ্লোর, ১ম ও ২য় (আংশিক) ফ্লোরে। অন্যদিকে ,জীববিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের বিভাগসমূহ ২য় ও ৩য় (আংশিক) ফ্লোরে এবং ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং শারীরিক শিক্ষা ,ভাষা ও নৈতিক শিক্ষা অনুষদের বিভাগসমূহ অনুষদ ভবনের ৩য় ফ্লোরে ।

যবিপ্রবি এর আবাসিক হলসমূহ

  • শেখ হাসিনা ছাত্রী হল
  • শেখ হাসিনা ছাত্রী হল
  • মুনশি মোহাম্মদ মেহেরুল্লাহ হল
  • বীর প্রতীক তারামন বিবি হল

যবিপ্রবি এর কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী প্রশাসনিক ভবনের পাশে অবস্থিত । মানব সভ্যতা জ্ঞান ও সাংস্কৃতির ফসল। সভ্যতার লালন-পালন ও বিকাশে প্রাচীনকাল থেকে গ্রন্থাগার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। সমাজের সকল ক্ষেত্রে গ্রন্থাগারের গুরুত্ব অপরিসীম। মূলত: উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ প্রতিষ্ঠিত। উচ্চশিক্ষার লক্ষ্যে জ্ঞান বিতরণ ও গবেষণার জন্য ২০০৭ সালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের যাত্রা শুরু হয় যা সংক্ষেপে ‘যবিপ্রবি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার’ নামে পরিচিত। শুরু থেকেই যবিপ্রবি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ব্যবহারকারীকে বই , জার্নাল এবং অনলাইনভিত্তিক ই-বুক, ই- জার্নাল ও অডিও ভিজুয়াল সামগ্রী সেবা প্রদান করে আসছে। মূলত: কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার হলো অত্র প্রতিষ্ঠানের হৃদপি-।

যবিপ্রবি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে একজন গ্রন্থাগারিক, একজন উপ-গ্রন্থাগারিক, দুইজন সহকারী গ্রন্থাগারিক ও দুইজন সেকশন অফিসার কর্মরত আছেন। গ্রন্থাগারে কর্মরত সকল কর্মকর্তাগণ দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী যারা অধিকাংশই অভিজ্ঞ গ্রন্থাগার পেশাজীবী। কর্মকর্তা ছাড়াও গ্রন্থাগারে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির নয় জন স্টাফ কর্মরত আছে। এই জনবল দিয়ে গ্রন্থাগারিক মহোদয় সূচারুরূপে গ্রন্থাগারের সকল কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

মেডিকেল সেন্টার

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যায়ের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের নিচ তলায় মেডিকেল সেন্টারের কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ১ মার্চ এই সেন্টারের কার্যক্রম প্রশাসনিক ভবন থেকে ছয়তলা বিশিষ্ট মেডিকেল সেন্টারের নিজস্ব ভবনে স্থানান্তর করা হয়। শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি বিনামূল্যে ঔষধ সামগ্রী প্রদান করা হয়। এর পাশাপাশি ভর্তিচ্ছু ছাত্র-ছাত্রীদের ও নিয়োগকৃত শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীগণের স্বাস্থ্যবিষয়ক প্রত্যয়নপত্র প্রদান করে। এ ছাড়া এই সেন্টারে শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং তাঁদের পোষ্যদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর পোর্টালে ভিজিট করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন এবং ফেসবুক পেজে লাইক/ফলো দিয়ে রাখুন।

 

About E.H Emon

আস-সালামু আলাইকুম। আমার নাম মোঃ ইমদাদুল হক, এবং আমার ডাকনাম ইমন। আমি ঢাকার সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্টের একজন শিক্ষার্থী। আমি ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিচালক। সব সময় আমার ইঞ্জিনিয়ার শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ইনফর্মেশন দিতে অত্যন্ত ভালো লাগে। সেই ভালোলাগা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Check Also

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট)

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) বাংলাদেশের একটি সরকারি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের খুলনা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *