Breaking News
Home / স্বাস্থ্য / বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হল জাতিসংঘের এক বিশেষ সংস্থা। এই সংস্থা আন্তর্জাতিক জনস্বাস্থ্যের জন্য কাজ করে থাকে। এটি জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন দলের অংশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংবিধান, সংস্থাটির গভর্নিং বা প্রশাসনিক কাঠামো এবং নীতি স্থাপন করে। এর প্রধান উদ্দেশ্যটি “সর্বোচ্চ সম্ভাব্য সকল মানুষের স্বাস্থ্য নিশ্চিত করা”।এটির অবস্থান সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে। এটির বিশ্বব্যাপী ছয়টি আধা-স্বায়ত্তশাসিত আঞ্চলিক কার্যালয় এবং ১৬০টি ভুমি অফিসের সাথে সদর দপ্তর রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিস্তৃত কাজের মধ্যে রয়েছে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবার পক্ষে পরামর্শ দেওয়া। জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি নিরীক্ষণ করা, স্বাস্থ্য জরুরী পরিস্থিতিতে প্রতিক্রিয়া সমন্বয় করা এবং মানবস্বাস্থ্য ও সুস্বাস্থ্যের প্রচার করা। এটি দেশগুলিকে প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করে, আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য মান এবং নির্দেশিকা নির্ধারণ করে এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য জরিপের মাধ্যমে বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে উপাত্ত প্রধান প্রকাশনা বিশ্ব স্বাস্থ্য প্রতিবেদন বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য বিষয়গুলির বিশেষজ্ঞ মূল্যায়ন এবং সমস্ত জাতির স্বাস্থ্যের পরিসংখ্যান সরবরাহ করে। এটি স্বাস্থ্য সম্মেলনে শীর্ষ সম্মেলন এবং আলোচনার ফোরাম হিসাবেও কাজ করে। এর বর্তমান অগ্রাধিকারগুলির মধ্যে রয়েছে সংক্রামক রোগ, বিশেষত এইচআইভি / এইডস, ইবোলা, ম্যালেরিয়া এবং যক্ষ্মা ; হৃদরোগ এবং ক্যান্সারের মতো অ-সংক্রামক রোগ ; স্বাস্থ্যকর খাদ্য, পুষ্টি এবং খাদ্য সুরক্ষা ; পেশাগত স্বাস্থ্য ; এবং পদার্থ অপব্যবহার ।এই সংস্থার বিভিন্ন জনস্বাস্থ্য সাফল্যে একটি নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল উচ্ছেদ এর গুটিবসন্ত, পোলিও নির্মূল, এবং একটি উন্নয়ন ইবোলা ভ্যাকসিন ।

আরো দেখুন

বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে

পরিবেশগত স্বাস্থ্য সুরক্ষা

এই ব্যাপারগুলো কমিয়ে আনার ব্যাপারে বদ্ধ পরিকর।শিশুদের ৬ টি ঘাতক রোগ (হাম,ডিপথেরিয়া,টিটেনাস,যক্ষ্মা,পোলিও ও হুপিং কাশি ) প্রতিরোধ করে। এছাড়াও ম্যালেরিয়া দূরীকরণ,বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা,পয়ঃনিষ্কাশনের ব্যবস্থার উন্নতি করে।কলেরা ও ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।২০১২ সালে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরিপ মতে পৃথিবীতে প্রায় ১ কোটি ২৬ লক্ষ মানুষ অস্বাস্থ্যকর কাজ করার কারণে মারা যান। অর্থাৎ, প্রতি ৪ জনে ১ জনের মৃত্য ঘটে এই কারণে। এর জন্য দায়ী অস্বাস্থ্যকর বায়ু, পানি, রাসায়নিক দ্রব্য ইত্যাদি। এসকল বস্তু মানুষের শরীরে প্রায় ১০০ প্রকারের রোগ সৃষ্টিতে সক্ষম।

ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর পোর্টালে ভিজিট করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন এবং ফেসবুক পেজে লাইক/ফলো দিয়ে রাখুন।

About E.H Emon

আস-সালামু আলাইকুম। আমার নাম মোঃ ইমদাদুল হক, এবং আমার ডাকনাম ইমন। আমি ঢাকার সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্টের একজন শিক্ষার্থী। আমি ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিচালক। সব সময় আমার ইঞ্জিনিয়ার শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ইনফর্মেশন দিতে অত্যন্ত ভালো লাগে। সেই ভালোলাগা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.