Breaking News
Home / কলেজ / রাজশাহী কলেজ-রাজশাহী

রাজশাহী কলেজ-রাজশাহী

রাজশাহী কলেজ, রাজশাহী শহরে অবস্থিত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ১৮৭৩ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ঢাকা কলেজ ও চট্টগ্রাম কলেজ এর পরে রাজশাহী কলেজ বাংলাদেশের ৩য় প্রাচীনতম কলেজ।বাংলাদেশে এই কলেজ হতেই সর্বপ্রথম মাস্টার্স ডিগ্রি প্রদান করা শুরু হয়। এটি বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ‍্যালয়ের অধীনে মাস্টার্স ও সম্মান ডিগ্রি প্রদান করে থাকে। ১৯৯৬ সাল থেকে এই কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ছাত্র নথিভুক্ত করা বন্ধ করা হলেও বর্তমানে ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষ থেকে পুনরায় ভর্তি করা হচ্ছে।

রাজশাহী কলেজ-রাজশাহী

ধরনঃ সরকারি কলেজ
স্থাপিতঃ ১৮৭৩; ১৪৮ বছর আগে
অধ্যক্ষ : মো. আব্দুল খালেক
প্রতিষ্ঠাতা: রাজা হরনাথ রায় চৌধুরী
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ: ২৪
শিক্ষার্থীঃ ৩২,০০০+
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ: ২৫৭+
অবস্থানঃ
বোয়ালিয়া-দরগাহ্ পাড়া, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন, রাজশাহী, বাংলাদেশ
স্নাতক: বিএসএস (পাস), বিএসসি (পাস), বিবিএস (পাস), বিএ (সম্মান), বিএসএস (সম্মান), বিএসসি (সম্মান), বিবিএস (সম্মান), বিবিএ (সম্মান)
সংক্ষিপ্ত নাম: RC
অধিভুক্তি: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
ওয়েবসাইটঃ http://rc.gov.bd/

রাজশাহী কলেজ ইতিহাস

রাজশাহী মহানগরীর প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮২৮ সালে বাউলিয়া ইংলিশ স্কুল প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে। প্রতিষ্ঠানটি তদানীন্তন পূর্ব বাংলায় আধুনিক শিক্ষার ইতিহাসে পথপ্রদর্শক হয়ে উঠেছিল। মূলত ইংরেজি শিক্ষার প্রতিস্থাপনা ও প্রসারকল্পে সে সময় রাজশাহীতে কর্মরত ইংরেজ কর্মকর্তা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হয় বাউলিয়া ইংলিশ স্কুল। সেদিনের সে ক্ষুদ্র বাউলিয়া ইংলিশ স্কুল’ ১৮৩৬ সালে প্রাদেশিক সরকার জাতীয়করণ করলে এ স্কুলটি রাজশাহী জিলা (বা জেলা) স্কুল নামে পরিচিত । সে স্কুলের ছাত্রদের উচ্চতর শিক্ষার জন্য একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়ায় রাজশাহী অঞ্চলের অধিকাংশ বিশিষ্ট নাগরিকদের সমন্বিত প্রচেষ্টা ও আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৮৭৩ সালে জেলা স্কুলকে উচ্চ মাধ্যমিক কলেজের মর্যাদা দেয়া হয় এবং একই বছর ৫ জন হিন্দু ও ১ জন মুসলমান ছাত্রসহ মাত্র ছয় জন ছাত্র নিয়ে কলেজিয়েট স্কুলের সঙ্গে চালু হয় উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীর সমমানের এফ. এ (ফার্স্ট আর্টস) কোর্স।১৮৭৮ সালে এই কলেজকে প্রথম গ্রেড মর্যাদা দেয়া এবং “রাজশাহী কলেজ” নামে নামকরণ করার সাথে সাথে একে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়-এর অধিভুক্ত করে এখানে বি.এ. কোর্স চালু করা হলে উত্তরবঙ্গের সর্বপ্রথম এবং সর্বশ্রেষ্ঠ কলেজ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় রাজশাহী কলেজ। ১৮৮১ সালে এই কলেজে স্নাতকোত্তর শ্রেণীর উদ্বোধন করা হয় এবং ১৮৮৩ সালে যোগ হয় বি.এল কোর্স। ১৯০৯ সালে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন আইনে কলেজ তার চাহিদা মেটাতে না পারলে মাস্টার্স কোর্স ও বি.এল. কোর্সের অধিভুক্তি বাতিল করা হয়।

অবস্থান

কলেজটি রাজশাহী শহরের কেন্দ্রস্থলে রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল এর পাশে অবস্থিত।

বিস্তারিত দেখুন গুগল ম্যাপে

যোগাযোগের ঠিকানা হল-

  • রাজশাহী কলেজ-রাজশাহী
  • রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন, রাজশাহী, বাংলাদেশ বাংলাদেশ।
  • যোগাযোগ :+88 0721-770080 ,+88 0721-770067
  • ইমেইল :rajshahicollegebd@gmail.com
  • ওয়েবসাইট : http://rc.gov.bd/

বিভাগ এবং অনুষদ সমূহ

কলা অনুষদ

সমাজবিজ্ঞান অনুষদ

বিজ্ঞান অনুষদ

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ

বাংলা বিভাগ রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ পদার্থ বিভাগ ফিন্যান্স এ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগ
ইংরেজি বিভাগ অর্থনীতি বিভাগ রসায়ন বিভাগ হিসাববিজ্ঞান বিভাগ
আরবি ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ সমাজবিজ্ঞান বিভাগ গণিত বিভাগ মার্কেটিং বিভাগ
ইতিহাস বিভাগ সমাজকর্ম বিভাগ পরিসংখ্যান বিভাগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ
ইসলামের ইতিহাস বিভাগ   প্রাণিবিদ্যা বিভাগ  
দর্শন বিভাগ   উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ  
সংস্কৃত বিভাগ   মনোবিজ্ঞান বিভাগ  
উর্দু বিভাগ   ভূগোল বিভাগ  

লাইব্রেরী

রাজশাহী কলেজের প্রসিদ্ধির অন্যতম কারণ হলো এর গ্রন্থাগার যাতে পুরাতন মূল্যবান ও সাম্প্রতিক সংষ্করনের বই, জার্নাল এবং সাময়িকীর প্রাচুর্য রয়েছে। কলেজ লাইব্রেরিতে অনেক দুর্লভ বই, গেজেট, এনসাইক্লোপিডিয়া এবং পাণ্ডুলিপি রয়েছে এবং প্রাচীন পাণ্ডুলিপির অনেকগুলিই পুঁথি-তে সমৃদ্ধ। বর্তমানে (১৩/০২/২০১৩) কলেজ লাইব্রেরিতে বইয়ের সংখ্যা মোট ৭৭,৯৪৯। গ্রন্থাগারটি কলেজের প্রশাসন ভবনের পশ্চিমে অবস্থিত ।

আবাসিক হলসমূহ

১৯২২ সালে সময়ের প্রয়োজনে রাজশাহী কলেজ মুসলিম ছাত্রাবাসের যাত্রা শুরু হয়। ছাত্রাবাসে মোট ০৭ টি ভবন রয়েছে, ভবনগুলো ০৭ জন বীরশ্রেষ্ঠদের নামানুসারে রাখা হয়েছে। কলেজের হিন্দু ছাত্রদের আবাসিক সুব্যবস্থার জন্য একটি হিন্দু ছাত্রাবাস আছে৷ ছাত্রাবাসটির নাম “মহারাণী হেমন্ত কুমারী হিন্দু ছাত্রাবাস”৷ যেটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৯৯ সালে৷

ছাত্রীদের কষ্ট লাঘবের জন্য ১৯৬৬ সালে রাজশাহী কলেজের অদূরে ছাত্রীদের থাকার সুবিধার জন্য অফিস বিল্ডিং তত্ত্বাবধায়কের বাসভবন সহ একটি দোতলা বিল্ডিং নির্মাণ করা হয় যার নাম মেইন বিল্ডিং এবং এর মাধ্যমে ছাত্রীনিবাসের যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তীতে মেইন বিল্ডিং চারতলা করা হয়। ছাত্রী সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় পর্যায়ক্রমে তাদের আবাসন সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে নিউব্লক, উত্তরা বিল্ডিং, বলাকা ও রহমতুন্নেছা বিল্ডিং তৈরি করা হয়।

বর্তমান শিক্ষা পরিষদ

বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানে ২২ জন অধ্যাপক, ৫৭ সহযোগী অধ্যাপক, ৮০ জন সহকারী অধ্যাপক ও ৮২ জন প্রভাষক সমন্বয়ে শিক্ষা পরিষদ বিদ্যমান।

গবেষণাগার

কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের প্রত্যেকটিতে নিজস্ব গবেষণাগার রয়েছে যা পরীক্ষণ করার জন্য আধুনিক ও আদি যন্ত্রপাতি দ্বারা সজ্জিত।

ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর পোর্টালে ভিজিট করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন এবং ফেসবুক পেজে লাইক/ফলো দিয়ে রাখুন।

About E.H Emon

আস-সালামু আলাইকুম। আমার নাম মোঃ ইমদাদুল হক, এবং আমার ডাকনাম ইমন। আমি ঢাকার সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ইলেকট্রনিক্স ডিপার্টমেন্টের একজন শিক্ষার্থী। আমি ডি ইঞ্জিনিয়ার্স নিউজ এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিচালক। সব সময় আমার ইঞ্জিনিয়ার শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ইনফর্মেশন দিতে অত্যন্ত ভালো লাগে। সেই ভালোলাগা থেকেই এই ব্লগের উৎপত্তি।

Check Also

আদিনা ফজলুল হক সরকারি কলেজ

আদিনা ফজলুল হক সরকারি কলেজ

আদিনা ফজলুল হক সরকারি কলেজ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার প্রাচীনতম শীর্ষস্থানীয় একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.